1. jubayer.jay@gmail.com : jubayer Ahmed : jubayer Ahmed
  2. admin@sylhetmail24.com : jubayer :
  3. shahabuddin1234@gmail.com : shuhebkhan :
  4. unoskhanrukon@gmail.com : unoskhan :
রবিবার, ০১ নভেম্বর ২০২০, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন

কোভিড-১৯ সনদের ভুলে বাহরাইন যাওয়া হলো না প্রবাসী আতিকুরের

  • প্রকাশিত হয়েছে: শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৮ বার পড়া হয়েছে

আতিকুর রহমান মধ্যপ্রাচ্যের বাহরাইন প্রবাসী। চলতি বছরের ২৯ জানুয়ারি ছুটিতে দেশে আসছিলেন। করোনা ভাইরাসের কারনে বিদেশগামী ফ্লাইট বন্ধ থাকায় প্রায় ৮ মাস আটকা পড়েছিলেন দেশের বাড়িতে।

সম্প্রতি সময়ে সরকারিভাবে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে ফ্লাইট চালু করলে সকল নিয়ম মেনে কর্মস্থল বাহরাইনে যেতে এয়ারপোর্টে হাজির হলেও করোনা টেস্টে রিপোর্টে স্বাস্থ্যবিভাগের দায়িত্বশীলদের ভুলের কারনে বাহরাইন যেতে পারেননি সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার বীরগাঁও গ্রামের বাসিন্দা আতিকুর রহমান। ফলে লাখ টাকার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ভোক্তভোগী আতিকুর রহমান।

জানা যায়, গত ১৭ সেপ্টম্বর চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে ফ্লাইট হওয়ার কথা আতিকুর রহমানের। কোভিড-১৯ এর সরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা অনুয়ায়ি নির্দিষ্ট ফি প্রদান করে সিলেট সিভিল সার্জন অফিসের মাধ্যমে কোভিড-১৯ সনদ গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট ল্যাবে ১৪ সেপ্টেম্বর নমুনা প্রদান করেন আতিকুর। নিয়ম অনুয়ায়ী ফ্লাইটের ৭২ ঘন্টা পূর্বে নমুনা দেন আতিক। স্বাস্থ্য ব্যস্থাপনা অনুয়ায়ি ফ্লাইটের আগের দিন কোভিট-১৯ এর নেগেটিভ সনদ বাধ্যকতা থাকলেও দেয়া হয় নমুমা প্রদানের দিন ১৪ সেপ্টেম্বর। নমুনা সংগ্রহের দিন নমুনা ফলাফলের তারিখ ইস্যু করায় চট্টগ্রাম বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ আতিকুরের বাহরাইন ফ্লাইটে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করে। তাছাড়া কোভিন- ১৯ সনদে আতিকুর রহমানের উপজেলা দক্ষিণ সুনামগঞ্জের স্থলে দক্ষিণ সুরমা ও পাসপোর্ট নাম্বার ভুল করা হয়। বিদেশ গ্রমণের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের এমন উদাসীনতায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভোক্তভোগী প্রবাসী আতিকুর রহমান।

তিনি বলেন, অনেক কষ্ট করে কর্মস্থলে যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছিল। আমি নিয়ম অনুয়ায়ি নমুনা দিয়ে বিমানের টিকেট কেটে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে হাজির হই। সেখানে গিয়ে আমার কোভিড-১৯ সনদ কোনো কাজেই আসেনি। কর্তৃপক্ষের ভুলের কারনে আমার লাখ টাকার ক্ষতি হলো। এখন বিদেশ যাওয়াই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

এ ব্যাপারে সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেম আনন্দ মন্ডল দায় অস্বীকার করে বলেন, ইতোপূর্বে এমন ঘটনা ঘটেনি। ফ্লাইটের আগে দিন কোভিট-১৯ সনদ দেয়ার কথা। এটা কি করে হলো বুঝতেছি না।

আমরা কেবল বিদেশগামীর নমুনা সংগ্রহ করি। নমুনার ফলাফল প্রকাশ করেন এমএজি ওসমানি মেডিকেলে কর্তৃপক্ষ। তাদের সাথে যোগাযোগ করে দেখতে পারেন।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ
DMCA.com Protection Status