1. jubayer.jay@gmail.com : jubayer Ahmed : jubayer Ahmed
  2. admin@sylhetmail24.com : jubayer :
  3. shahabuddin1234@gmail.com : shuhebkhan :
  4. unoskhanrukon@gmail.com : unoskhan :
শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৪:৫৭ অপরাহ্ন

ক্রিকেটে কোন উন্নয়নই দেখছেন না বাফুফে বস সালাউদ্দিন!

  • প্রকাশিত হয়েছে: সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৭৯ বার পড়া হয়েছে

দীর্ঘ এক ঘুগ ধরে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) দায়িত্বে আছেন। দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন দেখাতে না পারলেও চতুর্থবারের জন্য ফের প্রার্থী হয়েছেন কাজী সালাউদ্দিন। যা নিয়ে আলোচনা সর্বত্র। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফুটবলভক্তরা তার ফের নির্বাচনে তার অংশ নেয়া মোটেও ভালো চোখে দেখছে না।

তারপরও তিনি আগামী ৩ অক্টোবর বাফুফের নির্বাচনে সভাপতি প্রার্থী। হাজারো সমালোচার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ফুটবল কোন উন্নয়ন না করে আরও তার সময়ে আরও অবনতি হয়েছে ফুটবলের। এই সমালোচনার জবাব দিতে গিয়ে তিনি দেশের ক্রিকেটের কোন ‘উন্নয়নই’ দেখছেন না বলে জানিয়েছেন।

নির্বাচনের আগে ঢাকার একটি দৈনিককে দেয়া দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে তিনি এভাবেই সমালোচনার জবাব দেয়ার চেষ্টা করেছেন। এক প্রশ্নের জবাবে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, ফুটবলের জনপ্রিয়তা ঠিকই আছে। ফুটবলের জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে হলে সবাইকে একটা টিম হিসেবে কাজ করতে হবে। প্লেয়ারদের খেলতে হবে, অফিসিয়ালদের অর্গানাইজ করতে হবে, মিডিয়াকে সাপোর্ট দিতে হবে। মিডিয়া যদি ২৪ ঘণ্টা ফুটবলের বিরুদ্ধে বলে, বিরুদ্ধে লেখে- তাহলে দর্শক কীভাবে আসবে?

মিডিয়ার উপর দোষ চাপিয়ে তিনি বলেন, একটা সিনেমা মার্কেটে আসার আগেই যদি আপনি বলতে থাকেন- সিনেমা ভালো না, তাহলে কীভাবে সিনেমা ভালো করবে। আমাকে যখন দু’একজন ফোন করে বলেন যে, ফুটবল নাকি মরে গেছে। আমি তখন তাকে বলি, আপনি খেলা দেখেছেন, নাকি টকশো দেখে বলছেন। তিনি তখন বলেন আমি টকশোতে শুনেছি। আপনি খেলা দেখে বলেন না যে, আমরা খারাপ খেলছি! ভারতের মাঠে যে খেলাটা আমাদের ছেলেরা খেলল, এমন ফুটবল তো বাংলাদেশ অতীতে ৫০ বছরেও খেলেনি! এত ভালো খেলার পরও তেমন কোনো লাইম-লাইট হয়নি।

ফিফা র‌্যাংকিং উন্নয়নে কী করা যেতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে বাফুফের এই সভাপতি প্রার্থী বলেন, শুধু ভালো খেললেই ফিফা র‌্যাংকিং হয় না। ফ্রান্স যখন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয় তখন ওরা কিন্তু র‌্যাংকিংয়ে এক নম্বর ছিল না। চারে কিংবা পাঁচে ছিল। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে অনেক কিছু বিষয় আছে, কতগুলো প্রীতি ম্যাচ খেললেন, কতগুলো ম্যাচ খেললেন, অনেক কিছুই এখানে জড়িত। ভারত যেমন বছরে ফিফার ১০-১২টা প্রীতি ম্যাচ খেলে। এই ১০-১২টা ম্যাচ খেলতে আমাদের ১০-১২ কোটি টাকা লাগবে। আমাদের কাছে এত টাকা নেই, তাই আমরা একটা ম্যাচ খেলি।

র‌্যাংকিংয়ে তার সফলতার কথা উল্লেখ করে বলেন, আমি যখন বাফুফের সভাপতির দায়িত্ব নেই, তখন বাংলাদেশ ছিল ফিফা র‌্যাংকিংয়ে ১৮০ পজিশনে। সেখানে থেকে নামতে নামতে র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশ ১৯০ এ গেল। সেখান থেকে টেনে টেনে এখন ১৮৭তে নিয়ে এসেছি। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে নামাতে হলে মিনিমাম ১৫-২০ বছর লাগে। এভাবে যদি খেলা চলতে থাকে তাহলে বাংলাদেশ একটা সময়ে ফিফা র‌্যাংকিংয়ে ১৫০ এর নিচে চলে আসবে।

এক সময়ে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামেই ক্রিকেট আর ফুটবল ম্যাচ হতো। তখন ফুটবলাররা মাঠ না ছাড়লে ক্রিকেটাররা প্র্যাকটিসের সুযোগই পেত না। অবহেলিত সেই ক্রিকেটাররাই এখন বিশ্বকাপে খেলছে, অথচ ফুটবল ব্যর্থ-এমন প্রশ্নের উত্তরে বলেন, আহা! ভারত এটা (ক্রিকেট) ভালো খেলে বলেই এটাই অনেক টাকা-পয়সা ছড়াচ্ছে। এখানে তো লিগ নাই। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের প্রায় একশটা স্টেডিয়াম প্রতিনিয়ত ফুটবল খেলায় ব্যস্ত থাকে। ক্রিকেটে কী সেটা আছে! কাজেই ক্রিকেট আর ফুটবলকে এক করবেন না। এ ব্যাপারে আমি কোনো বক্তব্য দিতে রাজি না। দেখেন আপনি ফুটবলকে ক্রিকেটের সঙ্গে কম্পেয়ার কইরেন না। আপনি দেখেন- বিশ্বের ১০টা ক্রিকেট দলের মধ্যে বাংলাদেশ ৮ নম্বর। দশটার মধ্যে আট নম্বর, উন্নয়নটা তো আমি চোখে দেখলাম না। দশের মধ্যে আপনি আট! আরেকটা কথা হল-ক্রিকেট আর ফুটবল তো এক জিনিস না।

বার্সেলোনা অথবা রিয়াল মাদ্রিদের একটা ফুটবল প্লেয়ার যদি আপনি বিক্রি করেন তাহলে আপনি আপনার উঠানে (আপনার দেশে) দুইটা (ক্রিকেট) বিশ্বকাপ করতে পারবেন। কাজেই ফুটবলের সঙ্গে আপনি ক্রিকেটকে মিলাতে পারেন না। আমার মনে হয় ক্রিকেট ফুটবল নিয়ে একসঙ্গে আমাদের কোনো বক্তব্যই রাখা উচিত নয়।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ
DMCA.com Protection Status